আজকের সাহিত্য – টেলে প্রেম, অতঃপর প্রথম দেখা 

–  আবদুল মালেক চৌধুরী

কিছুদিন আগে অফিসে আসার পথে রিকশা মোড় ঘুরতে অন্য একটা রিক্সার সাথে ধাক্কা, যথারীতি যা হয় – রিকশাওয়ালাদের বাকবিতন্ডা, হাতাহাতি । অপর রিক্সায় বসা প্যাসেঞ্জার সুন্দর একটা হাসি দিয়ে আমাকে বললেন “মালেক ভাই না “?

(উপরের গল্পটা শেষের দিকে বলছি)

শীতকাল আর বৃষ্টি – আমাকে কিছুটা রোমান্টিক করে। আহা – হারিয়ে যাই সেই কোথায় কোথায়, কোন অতীতে। স্মৃতির ঘোরে ঘুরতে ঘুরতে এক জায়গায় এসে দাঁড়ালাম।

যে সময়টাতে মেয়ে দেখলে হাঁটার ভঙ্গিমা পাল্টে যেত, মাথার চুল ঠিক করতে করতে চুল ছিঁড়ে যেত, ফেয়ার এন্ড লাভলী মাখতে মাখতে মুখের চামড়ার পুরত্ব বেড়ে যেত, বন্ধু থেকে ধার করে হলেও প্রতিদিন নতুন জামা পরে নায়ক নায়ক ভাবের উপর থাকতে হত, সবে মাত্র মোবাইল ফোন দেশে আসলো আহারে একটা ফোন আসলে সবাইকে দেখিয়ে কথা বলার যে ভঙ্গিমাই না করতাম।

ঠিক ঐ সময়ে অপর প্রান্তে মেয়ের ফোন মানেতো আর বুঝাতে হচ্ছে না আপনাদের। বন্ধুকে ……….১২১ ডায়াল করতে ভুলে চলে গেল ………২১২ নাম্বারে, ওপর প্রান্তে মেয়ে কন্ঠ শুনেই ফোন রেখে দিলাম। বুকটা ধরফর ধরফর করছে। কিছুদিন পর একটা মেসেজ দিলাম যেন আমি কিছুই জানিনা আমার বন্ধুকে মেসেজ দিচ্ছি এমন ভঙ্গিমায় ……………..সেই পরিচয়টা শুরু। রাত জেগে কথা বলা, মেসেজ দেয়া …………….তারপর যথারীতি মাস ছয়েক পরে দেখা করার পালা। আগের দিন রাতে ঘুম হওয়ার কথা না, সকাল দশটায় জিইসি ব্লু-বেলের সামনে দেখা করার জায়গা ঠিক করা হল। ভয়ে কোন বন্ধুকে ও বলিনি , আগে নিজে দেখে নেই কেমন না হয়, পরে আবার বন্ধুদের কাছে লজ্জায় না পড়ি। ব্লু-বেলের রাস্তার ওপর প্রান্ত থেকে ফোন দিলাম ” তুমি আসছ “? “না , এইতো এখনি চলে আসব” প্রতিউত্তর। আমি এমন ভাবে দাঁড়িয়েছি যেন সে আসলে আমাকে না দেখে , আগে আমি দেখব তারপর। কিছুক্ষণ পর ফোন দিলো ” কই তুমি, আমিতো ব্লু-বেলের পাশে”। ভাই এইটা কি দেখলাম !!! কনফার্ম হওয়ার জন্য ফোন কেটে দিয়ে আমি আবার করলাম দেখলাম হ্যা যা দেখেছি সেটাই সত্যি।মোবাইল-টোবাইল বন্ধ করে দৌড়ে এমন ভাবে পালালাম যেন পিছনে যম।
(এই গল্পটা আগের গল্পটা শেষের করার পর বলি)
সুন্দর হাসি দিয়ে যে আমাকে মালেক ভাই কিনা জিজ্ঞেস করল তাকে বললাম হ্যা আমি মালেক। আমি বললাম “আপনাকে তো চিনলাম না?” উত্তরে উনি বললেন “আমাকে চিনবেন না , আমি আপনার ফেস বুক বন্ধু, আপনাকে ফেস বুকে দেখেছি”।এই ফেস বুকের মাধ্যমে অনেকের সাথে আমার বা আমাদের খুব সুন্দর বন্ধুত্ব, ভাল পরিচয় হয় অথচ এমন অনেক আপনজন আছেন যাদের সাথে এখনো আমাদের দেখাই হয়নি। ফেস বুকের বন্ধুত্ব হয়ে উঠোক সবার জন্য সুন্দর, মঙ্গল একটা বন্ধুত্ব -সম্পর্ক।
সতর্কতা – বন্ধুত্ব করার আগে ভাল করে পরিচিত হয়ে নিন, দেখা করার আগে একজন আরেকজনের Expectation ভালকরে জেনে নিন, ওয়েব কেমে দেখে নিন একজন আরেক জনকে যাতে করে দেখা করার পর আপনার মনভঙ্গ না হয়।যে সময়টা আমি বা আমাদের বয়সের মানুষগুলো পার করেছি হয়তো ঠিক সেই সময়টা আপনাদের , আপনারাও ঠিক এখন আমাদের মতই নিজেদের নায়ক নায়ক ভাবছেন আর সেই সময়টা পার করছেন। তাই এই সতর্কতা।
এই ফেস বুকটা যদি সেদিন থাকতো আমার মোবাইলে দেখা করার গল্পের মেয়েটাকে কষ্ট পেতে হত না। আমাকে মোবাইল বন্ধ করে পালিয়ে যেতে হত না। পোস্টের সাথে একটা মেয়ের ছবির নমুনা দিয়েছি আমার সেই মেয়েটা অনেকটা দেখতে এরকমই ছিল।সেদিনের নায়ক তাই খান খান হয়ে ভেঙ্গে যাওয়া হৃদয় নিয়ে এভাবে অলেম্পিক দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনের মত পালিয়েছিল।
পুনশ্চ: আমাকে ইতিমধ্যে যারা মেয়েটি কালো বলে এমন আচরণ করা ঠিক হয়নি মনে করছেন বা আমাকে ভিলেন ভাবতে শুরু করছেন তাদের জ্ঞাথার্তে বলছি, পরে আমি অনুশুচিত হয়ে মেয়েটির সাথে যোগাযোগ করি এবং আগের ঘটনা তাকে বুঝতে না দিয়ে তার সাথে দেখা করি এবং বন্ধুত্ব করি।
মোরাল – যে যার অবস্থান থেকে বিষয়টাকে শিক্ষনীয় মনে করে বর্তমান ইন্টারনেট যুগে পা বাড়াবেন।

( বাস্তব ঘটনার অবলম্বনে)

Related posts

Leave a Comment