কর্ণফুলীতে মাস্ক না পরার ‘অপরাধে’ ২২জনকে জরিমানা

মোঃ মহিউদ্দিন ঃ করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় দফা বিস্তার প্রতিরোধে ঘরের বাইরে সবার জন্য মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। সরকারের এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে কর্ণফুলীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে হোটেল, রেস্তোরা, শপিংমল ও যাত্রীবাহী বাসে মাস্ক না পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলার অপরাধে ২২ জনকে ৮ হাজার ৫৫০ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে আখতারুজ্জামান চৌধুরী চত্বর (মইজ্জ্যারটেক) এলাকায় এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনা সুলতানা এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুকান্ত সাহা।

এছাড়াও অভিযানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার পরিবেশন, করোনা নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ব্যবস্থা ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকার অপরাধে কয়েকটি হোটেলকে ১০ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা করা হয়। ভ্রাম্যমাণ অভিযানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন কর্ণফুলী থানা পুলিশ, ইউএনও অফিস স্টাফ, সিপিপি ও আনসার সদস্যসহ স্থানীয় ব্যক্তিবর্গগণ।

ডা. শাহিদ ইকবাল বলেন, দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কিছুটা কমে আসলেও প্রতিবেশি দেশ ভারতে প্রচুর সংখ্যক মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। এই ধারা যেকোনো মুহূর্তে ভারত থেকে বাংলাদেশে চলে আসতে পারে। এই অবস্থায় মাস্ক ব্যবহার করা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা অত্যন্ত প্রয়োজন।

কর্ণফুলী উপজ্লা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনা সুলতানা জানান, ‘পাবলিক প্লেসে কোনোভাবেই মাস্ক ছাড়া যাওয়া যাবে না। মসজিদ, জনসমাগম স্থলে কোনোভাবেই কেউ যেন মাস্ক ছাড়া না যান, তা নিশ্চিত করা হবে। আমরা সবাই যদি মাস্ক ব্যবহার করি, তাহলে অটোমেটিক আমাদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা কমে আসবে। এজন্য মন্ত্রিসভার নির্দেশনা হচ্ছে, সবাই যেন মাস্ক ব্যবহার করি।’

করোনা ভাইরাস (দ্বিতীয় ঢেউ) প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে কর্ণফুলীতে করোনা সচেতনতা বিষয়ক মাইকিং, লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ করেন এবং মোবাইল কোর্ট অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান। শীতে করোনার প্রকোপ কমাতে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করায় সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন অনেকেই।

Related posts