আনোয়ারায় এক গার্মেন্টস কর্মীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ !

নিজস্ব প্রতিনিধি – আনোয়ারা উপজেলার এক গার্মেন্টস কর্মীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একটি ভাড়া ঘরে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে আনোয়ারা থানায় একটি ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন।

গত শনিবার ৮ ফেব্রুয়ারি কেইপিজেড গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি থেকে কাজ শেষে এটিএম বুথ থেকে টাকা উত্তোলন করে বাড়ি ফেরার পথে অজ্ঞাত সিএনজি চালক মোঃ কাইয়ুম (২৬) নামের গাড়িতে উঠলে কাইয়ুম কিশোরীকে বাড়িত না নিয়ে উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের জসীম নামের এক ভাড়াটিয়ার কক্ষে নিয়ে ৮ দিন যাবত বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেছে বলে জানা যায় ।

এ ঘটনার ধর্ষিত হওয়া কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি রিপোর্টের মাধ্যমে আনোয়ারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

থানা সুত্রে জানা যায় ভোলা জেলার চরফ্যাশন থানার মজিদ নগরের নুর নবীর পুত্র মোঃ কাইয়ুম (২৬) গত ৮ ফেব্রুয়ারি শনিবার সন্ধ্যা থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বোয়ালিয়ায় একটি ভাড়া কক্ষে ৮ দিন যাবত বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে উক্ত কিশোরীকে ধর্ষণ করে আসছিল।

১৬ ফেব্রুয়ারি সকালে কিশোরীর হাতে টাকা এটিএম বুথ থেকে তুলা ১১ হাজার ৫শত টাকা ও মোবাইল কেড়ে নিয়ে তাড়িয়ে দেই।

উক্ত দিন সকাল সাড়ে ৮টায় জসীম উদ্দিনের ভাড়া ঘর হতে বের হয়ে গাড়ির জন্য রাস্তায় গেলে তার মামা সিএনজি চালক আবদুল জলিলের নজরে পড়ে। এরপর সিএনজি থামিয়ে তাকে গাড়ি করে তার নানার বাড়িতে নিয়ে যায়।

পরে কিশোরীর মামা তার বাবাকে ফোনে জানালে আমি গিয়ে মেয়ের মুখে বিস্তারিত ঘটনা জানতে পারি।

এরপর চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেলে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসলে ডাক্তার ওসিসি ওয়ার্ডে ভর্তি করিয়ে প্রাথমিক পরীক্ষা করে ধর্ষিত হয়েছে বলে ডাক্তার জানান।

বর্তমানে ধর্ষিত কিশোরী চট্টগ্রাম মেডিকেলে ওসিসি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আনোয়ারা থানার তদন্ত (ওসি) দিদারুল ইসলাম সিকদার জানান, উল্লেখিত ঘটনায় ধর্ষিত হওয়া কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন৷ বর্তমান আসামী পলাতক রয়েছেন।

আমরা আসামীকে আটক করতে অভিযানের চেষ্টা চালাচ্ছি। তাকে গ্রেফতার না করা পর্যন্ত এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Related posts