আনোয়ারায় পরৈকোড়া ইউনিয়নে বইছে নির্বাচনী হাওয়া

আমজাদ হোসেন
সারা আনোয়ারা

আগামী ১৫ই জুন আনোয়ারা পরৈকোড়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে। প্রচার-প্রচারণায় আর জনসংযোগে মুখর অলিগলি। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলছে নিজ নিজ মার্কায় ভোট প্রার্থনা। দলীয় নেতাদের সাথে নিয়ে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। দিচ্ছেন উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি আর ভোটাররাও খুঁজছেন যোগ্য প্রার্থী।

নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে প্রচার প্রচারণায় বিরামহীন সময় কাটছেন আনোয়ারা পরৈকোড়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীরা।তাদের সঙ্গে ব্যস্ত আছেন কর্মী, সমর্থকরাও।প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে ছুটছেন প্রার্থীরা। ইউনিয়নের সর্বত্র চষে বেড়াচ্ছেন তাঁরা। চাইছেন ভোট, সমর্থন আর দোয়া।

প্রতিদিন কাকডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে তাদের নির্বাচনী কার্যক্রম। প্রচার-প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে নির্বাচনী এলাকা। ভোটের দিন কে সামনে রেখে বাড়ি বাড়ি দিয়ে ভোটারের দুয়ারে ছুটছেন প্রার্থীরা। সবমিলিয়ে প্রার্থীদের প্রচারণায় জমে উঠেছে ভোট উৎসব।পরৈকোড়া ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে ৬জন চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন,তারা হলেন -পরৈকোড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আজিজুল হক বাবুল, আওয়ামীলীগ নেতা নাজিম উদ্দীন সুজন, পরৈকোড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী,হাসান জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী, নাজিম উদ্দীন, ও আব্দুল মালেক মানিক।

আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজিজুল হক চৌধুরী বাবুল গতকাল সোমবার তিনি ভিংরোল,কৈখাইন,পরৈকোড়া,পূর্ব কণ্যারায় গণ সংযোগ করেছেন। এসময় তার গণ সংযোগে দলীয় নেতাকর্মীদের ঢল নামে।গণসংযোগকালে তিনি বলেন,ভূমিমন্ত্রী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ আমাকে আমার এলাকার জনগণের সেবা করার যে সুযোগ করে দিয়েছেন সেজন্য আমি কৃতজ্ঞ। আমি দলের নেতাকর্মীসহ সাধরণ মানুষের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী পরৈকোড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী আনারস প্রতীকে নির্বাচন করছেন। তিনি গতকাল ওষখাইন,মামুরখাই,গণ সংযোগ করেছেন।
তিনি বলেন,আমি দলের নমিনেশন চেয়েছি,কিন্তু পাইনি। আমার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। সাধারণ মানুষের দিকে চেয়ে আমি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। ভোটারদের যথেষ্ট সাড়া পাচ্ছি। আমি নির্বাচন কমিশন এবং প্রশাসনের নিকট সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবী জানাই।

আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নাজিম উদ্দিন সুজন মোটর সাইকেল প্রতীকে নির্বাচন করছেন। তিনি গতকাল তার এলাকা ভিংরোলসহ বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী গণ সংযোগ করেছেন।তিনি বলেন,গতবারও আমি নির্বাচন করেছি। কারচুপির মাধ্যমে আমাকে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে। এবার যাতে গতবারের পূণরাবৃত্তি না হয় এজন্য আমি নির্বাচন কমিশনের প্রতি অনুরোধ জানাই। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আমার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবেনা।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হাসান জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী ঘোড়া প্রতীকে নির্বাচন করছেন।তিনি গতকাল নিজ এলাকা মামুরখাইনসহ বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী গণ সংযোগ করেছেন।তিনি বলেন,বিলাসবহুল বাড়িতে থাকার লোক আমি নয়। আমি আপনাদেরই সন্তান, আপনাদের সেবা করার লক্ষ্যেই ভোটে দাঁড়িয়েছি।আমিও হতদরিদ্র, গরীব ও অসহায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চাই। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে এই ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলবো।

স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ নাজিম উদ্দিনও গতকাল ছত্তারহাট,পরৈকোড়াসহ বিভিন্ন স্থানে টেলিফোন প্রতীকে নির্বাচনী গণ-সংযোগ করেছেন।তিনি বলেন-যদি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় তাহলে আমি শতভাগ আশাবাদী আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবো।

আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মালেক মানিক চশমা প্রতীকে নির্বাচন করছেন।তার নির্বাচনী গণ সংযোগ প্রচারণায় তেমনটাই চোখে পড়ে নি।

আলাউদ্দীন নামে এক ভোটার জানান, ভোট আসলে প্রার্থীদের আনাগোনার কমতি থাকে না। ভোট শেষ হলেই তাদের দেখা পাওয়া যায় না। প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচিত হয়ে সেই মোতাবেক কাজ করে না বরং নির্বাচনের পর সব ভুলে যায় প্রার্থীরা।

উল্লেখ্য, গত ৫ জানুয়ারি ৬ষ্ঠ ধাপে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে টানা ২ বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মামুনুর রশিদ চৌধুরী আশরাফ। শারীরিক অসুস্থতার কারণে গ্যাজেট প্রকাশের পর গত ১০ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি। তবে এর ১ সপ্তাহ পর তিনি ভার্চ্যুয়ালি শপথ গ্রহণ করেন। শপথের পর পর তাঁর শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে গত ৫ মার্চ তিনি ইন্তেকাল করেন। যার কারণে নির্বাচন কমিশন পরৈকোড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদটি শূণ্য ঘোষণা করে।যার ফলে এই ইউনিয়নে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

Related posts