আনোয়ারা ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশনের নৌ-বিহার ও সুহৃদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

 

প্রকৌশলী ছলিম আল আনোয়ার
সারা আনোয়ারা
২২-০২-২০১৯ ইং শুক্রবার

গতকাল বৃহস্পতিবার আনোয়ারা ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশনের নৌ-বিহার ও সুহৃদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়৷
সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ’র নেতৃত্বে সকাল ৮ঃ৩০ মিনিটে চট্টগ্রামের কর্নফুলী ব্রীজের দক্ষিণ পাড়ে অবস্থিত এস আলম ঘাট থেকে সুসজ্জিত নৌ-বহর কাপ্তাইয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে৷

সকালের নাস্তা পর্ব শেষে শুরু হয় সদস্যদের নিয়ে সুহৃদ সমাবেশ যাতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ। সহ সভাপতি ইঞ্জিঃ মোঃ নেজাম উদ্দিন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহ সভাপতি ইন্জিঃ মোঃ ছলিম আল আনোয়ার, সাধারন সম্পাদক ইঞ্জিঃ মোঃ জাহেদুল আলম, সহ সভাপতি ইঞ্জিঃ ফোরকান উদ্দীন, ইঞ্জিঃ মোঃ মাসুদ পারভেজ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিঃ রিয়াজুল আলম সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিঃ এম এ হান্নান, অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ইঞ্জিঃ মোঃ ওসমান আলী, সমাজ কল্যান সম্পাদক ইঞ্জিঃ মোঃ দিদার, প্রচার সম্পাদক ইঞ্জিঃ আবু জাফর, ক্রীড়া সম্পাদক ইঞ্জিঃ ইফতেখার উদ্দিন প্রমূখ ৷

বক্তারা তাদের বক্তব্যে আনোয়ারা ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশনের বিভিন্ন কার্যক্রম ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার উপর বিভিন্ন পরামর্শ দেন। সেই সাথে ব্যতিক্রম ধর্মী নৌবিহার উপহার দেওয়ার জন্য আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান ৷ এছাড়াও আনোয়ারার উন্নয়নে এই সংগঠন পূর্বের ধারাবাহিকতায় অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে বলে বক্তারা তাদের বক্তব্যে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ৷

সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ তার বক্তব্যে বলেন, মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে আমরা প্রায় দেড় বছর সময় অতিবাহিত করছি৷ এর মধ্য আমরা দেশের বিভিন্ন স্তরে যারা অবদান রাখছে তাদের সম্মাননা প্রদান, শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, এতিম ছাত্রদের নিয়ে ইফতার মাহফিল সম্পন্ন, বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি, ইঞ্জিনিয়ারদের পদমর্যাদা রক্ষায় শিল্প প্রতিষ্ঠানের সাথে স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা, বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস সমুহ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে যাচ্ছি। অতি শীঘ্রই আমরা স্কুল ভিত্তিক বিনামূল্যে আইসিটি ও হাউজ ওয়্যারিং কোর্স এবং মহিলাদের জন্য সেলাই ও হস্তশিল্প প্রশিক্ষন চালু করতে যাচ্ছি। আপনাদের পরামর্শ, সহযোগিতা আমাদের সংগঠনকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ ৷

দেখতে দেখতে নৌবিহার পৌঁছে যায় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত কাপ্তাই চিতমরং ঘাটে, সেখানে কিছুক্ষণের বিরতিতে সবাই বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন করে। এভাবে অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব শেষ হয় কাপ্তাই জুম রেস্টুরেন্ট এ গিয়ে।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে প্রীতিভোজ, সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং সর্বশেষ লাকী কুপনের ড্র অনুষ্ঠিত হয় ও বিজয়ীদর মধ্যে উপহার বিতরণ করা হয়।
সন্ধ্যা ৭ টায় নৌ-বহর পূনরায় কর্নফুলী ঘাটে পৌছাঁলে সভাপতি অংশগ্রহনকারী সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ম্যাস গ্রুপ, কুইক পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং, যমুনা ইলেকট্রনিকস ও এম এইচ প্রপার্টিজ এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Related posts

Leave a Comment