বাঁশখালীতে যৌথবাহিনীর অভিযানে মেম্বার জাফর সহ নিহত ৩

বাঁশখালী প্রতিনিধি
সারা আনোয়ারা
২১-০৬-২০১৯

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সরল ইউনিয়নে যৌথবাহিনীর এক অভিযানে মেম্বার জাফর সহ ৩ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বিশেষ সুত্র মতে আজ ২১শে জুন শুক্রবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে বাঁশখালীর সরল ইউনিয়নে অভিযান পরিচালনা করতে গেলে র‌্যাবের সাথে সন্ত্রাসীদের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এতে একই গ্রামের আপন সহোদর মেম্বার জাফর আহমেদ (৪৫) ও খলিল আহমেদ (৪০) এবং অপর জন আবদুল মোনাফ নিহত হন । এসময় ডাকাতসহ বিভিন্ন মামলা আসামীসহ ২০ জনকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বাঁশখালীর বৈলছড়ি, সরল, চাম্বল, ছনুয়া, গন্ডামারা, বাহারছড়া, খানখানাবাদ, কাথারিয়া ও পুকুরিয়াসহ ৯টি ইউনিয়নে ব্যাপকহারে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার রীতিমতো অঘোষিত যুদ্ধক্ষেত্রে রুপ নিয়েছে। বাকি ৫ ইউনিয়ন পুঁইছড়ি, শীলকূপ, সাধনপুর, শেখেরখীল, কালীপুর ও ১টি পৌরসভায় অস্ত্রের মহড়াও কমতি নেই। সরকারিভাবে পরিত্যক্ত ও মালিকানাধীন কয়েক হাজার একর জমির চিংড়ি ঘের দখল, লবণের মাঠ দখল, বনবিভাগের বিস্তীর্ণ এলাকার পাহাড়ি গাছ কর্তন, পাহাড় কাটা, বালু উত্তোলন, স্ট্যাম্পের মাধ্যমে বনবিভাগের জায়গা বিক্রয় করে বাড়ি নির্মাণসহ বিবিধ বিষয় নিয়ে কতিপয় জনপ্রতিনিধি, সন্ত্রাসী ও প্রভাবশালীদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করতে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ ওঠেছে, এসব বিষয় থেকে লাখ লাখ টাকা কতিপয় জনপ্রতিনিধি ও কতিপয় সরকারি কর্মকর্তাদের পকেটেও যাওয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অপরাধ দমনে ঠিকমতো কাজ করে না। এমনকি চাম্বলের জঙ্গল পাহাড়ি এলাকায় ১৫ একরেরও অধিক সরকারি বনানয়নের জায়গার গাছ কেটে বিলীন করা হলেও বনবিভাগের কোনো অভিযোগ সংশ্লিষ্ট থানায় বা বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থাপন করেননি বিট কর্মকর্তা।

নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তবে র‌্যাবের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই বলা হয়নি এখনও।

Related posts